আগামীর বাংলাদেশ হবে ক্যাশলেস: জয়

সম্পাদনা/লেখক: আব্দুল্লাহ আল মামুন

সোনালী ব্যাংকের ডিজিটাল গেটওয়ে ব্লেজ সার্ভিসের মাধ্যমে বিশ্বের যেকোনো প্রান্ত থেকে প্রবাসীদের পাঠানো টাকা মাত্র পাঁচ সেকেন্ডে সরাসরি গ্রাহকের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে যুক্ত হবে। এ সেবা বিরতিহীনভাবে চালু থাকবে। ব্লেজ সার্ভিস মঙ্গলবার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব আহমেদ ওয়াজেদ জয়।

আগামী ১০ বছরে বাংলাদেশকে পরিপূর্ণভাবে ক্যাশলেস বা কাগুজে টাকামুক্ত হিসেবে গড়ে তোলার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব আহমেদ ওয়াজেদ জয়।

রেমিট্যান্স পাঠাতে সোনালী ব্যাংকের চালু করা ব্লেজ সার্ভিসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পুরো অনুষ্ঠানটি পরিচালিত হয় ডিজিটাল মাধ্যমে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, সোনালী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান জিয়াউল হাসান সিদ্দিকী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। ভার্চুয়ালি আরও যুক্ত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আহমেদ জামাল, সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আতাউর রহমান প্রধান, হোমপে এলএলসি, ইউএস-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল আহসান এবং আইটিসিএল-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী সাইফুদ্দিন মুনির প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি উপদেষ্টা বলেন, ‘ক্যাশলেসই ভবিষ্যৎ। এটাই ডিজিটাল বাংলাদেশের পরবর্তী স্বপ্ন।

 

 

‘ব্লেজের মাধ্যমে বিদেশ থেকে সরাসরি সাধারণ মানুষের মোবাইলে রেমিট্যান্স পৌঁছে যাবে। তিনি যেকোনো কেনাকাটার পেমেন্ট মোবাইল ফোন থেকেই করতে পারবেন। তাদের ক্যাশ হাতে রাখতে হবে না। প্রবাসীদের পাঠানো কষ্টের উপার্জন আর কেউ চুরি করতে পারবে না।’

ব্লেজ সার্ভিসের মাধ্যমে বিশ্বের যেকোনো প্রান্ত থেকে প্রবাসীদের পাঠানো টাকা মাত্র পাঁচ সেকেন্ডে সরাসরি গ্রাহকের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে যুক্ত হবে। এ পদ্ধতিতে টাকা পাঠানো যাবে সাত দিন ২৪ ঘণ্টা। সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে এই উদ্যোগে রয়েছে হোমপে এবং আইটিসিএল।

অনুষ্ঠানে জয় বলেন, ‘আওয়ামী লীগের নজর শুধু আজকের দিকে নয়। ভবিষ্যতে কী হবে, সেদিকেও আমাদের নজর রয়েছে। এটিকে কেন্দ্র করেই আমাদের সব প্রস্তুতি। আজ থেকে ১০ বছর পর আমরা কোথায় যাব, সেটাই ডিজিটাল বাংলাদেশের ভিশন। আমাদের এখনকার স্বপ্ন হচ্ছে আমরা হব একটি ক্যাশলেস সোসাইটি।

‘আমাদের দেশের ৫ কোটি মানুষের এখনও কোনো ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নেই। তারা পুরোপুরি ক্যাশের ওপর নির্ভরশীল। কিন্তু তাদের এই টাকা তো চুরি হতে পারে। পথে অনেকেই লুটে নিতে পারে। ক্যাশ ব্যবস্থাপনায় দুর্নীতির সুযোগ থাকে, কিন্তু ক্যাশলেস হয়ে গেলে এই দুর্নীতির সুযোগ বন্ধ হয়ে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘সরকারি সব ভাতা এখন ডিজিটালি দেয়া হচ্ছে। আগে যারা এসব বিতরণ করত, তাদের চুরি করার সুযোগ থাকত। আমরা সেটা বন্ধ করে দিয়েছি।

‘আজকাল ডিজিটাল যুগে কোনো লিমিটেশনের মানে নেই। এ জন্যই ব্লেজের উদ্বোধন। যেমন আমার এখানে এখন দিন কিন্তু বাংলাদেশে রাত। আমি যদি দেশে কাউকে টাকা পাঠাই, সে কিন্তু এখন সেটা পাবে না। হয়তো তাকে আরো দু-এক দিন অপেক্ষা করতে হবে। কিন্তু ব্লেজের মাধ্যমে টাকা পাঠালে সেটা রাত দুইটা বাজলেও পেয়ে যাবে। আর এর জন্য কোথাও যেতে হবে না।’

জয় বলেন, ‘আমিও একজন প্রবাসী, আমার হয়তো সেভাবে দেশে কোনো টাকা পাঠাতে হয়তো হয় না। আমাদের দেশের আয়ের সবচেয়ে বেশি আসে রেমিট্যান্স থেকে। এটা গার্মেন্টসের চেয়েও বেশি। প্রবাসী শ্রমিক বা ইঞ্জিনিয়ার যারা বিদেশে কাজ করেন, তারা পরিবারকে প্রতি মাসেই টাকা পাঠান। আমি বাংলাদেশ ব্যাংককে কৃতজ্ঞতা জানাই, ধন্যবাদ জানাই, তারা এই টাকা পাঠানোর পদ্ধতিটি সহজ করেছে। বিভিন্ন দেশে রেমিট্যান্স সেন্টার খুলেছে।

‘এখন যারা টাকা পাঠান, তাদের আগে ব্যাংকে বা রেমিট্যান্স সেন্টারে যেতে হয়। সেখানে ভেরিফিকেশনের পর তারা টাকা জমা দেন। আবার এসব স্থানে টাকা পাঠাতে হয় সপ্তাহে ৫ দিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টার মধ্যে। সেটা পৌঁছাতে পৌঁছাতে আরো দু-এক দিন লেগে যায়।’

সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, ‘এখন কোভিডের কারণে ব্যাংকে বা রেমিট্যান্স সেন্টারে নানা শঙ্কা থাকে। এ পদ্ধতিতে টাকা পাঠালে সেটা থাকছে না। আমি আশা করি, সারা বিশ্বেই প্রবাসীরা এ পদ্ধতিতে টাকা পাঠাতে পারবেন। এই ব্লেজ সার্ভিসটা হবে ক্যাশলেস সোসাইটির একটি অংশ।

‘আপনারা (প্রবাসীরা) যখনই রেমিট্যান্স পাঠাতে চান, এটা ব্যবহার করুন। ভবিষ্যতের বাংলাদেশ হবে সম্পূর্ণ ডিজিটাল ও ক্যাশলেস। এটাই আগামী ১০ ও ২০ বছরের স্বপ্ন।’

তথ্য ও প্রযুক্তি উপদেষ্টা বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন হচ্ছে বাংলাদেশকে উন্নত করা, এগিয়ে নিয়ে যাওয়া এবং মানুষের জীবনকে সহজ করা। কোভিডের সময় আমরা এর সবচেয়ে বেশি সুফল পেয়েছি। এ সময় অনেক দেশের সরকার অসহায় হয়ে গেছে। সরকার পরিচালনা করতে পারেনি, স্কুল-কলেজ বন্ধ হয়ে যায়।

‘আমরা অনেক আগে থেকেই ডিজিটাল হওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছি। শুরু থেকেই বিভিন্ন সরকারি কাজে ভিডিও কনফারেন্সের ব্যবহার হয়েছে অনেক আগেই। কোভিডের আগে থেকে সিস্টেমটা ছিল।

‘আমরা ইউনিয়ন পর্যায়ে অপটিক্যাল ফাইবার স্থাপন করি। কোভিড হওয়ার আগে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অতটা কাজ হয়নি। কিন্তু যখন কোভিড শুরু হলো, তখন সিস্টেমটা ছিল বলে দ্রুত এই পদ্ধতিতে চলে যেতে পেরেছি। আর এ কারণে আমাদের অর্থনীতিতে কোভিডের প্রভাব তেমন একটা পড়েনি।’

অনুষ্ঠানে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক জানান, আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে কাগজহীন দপ্তর কার্যক্রমে প্রায় ১১ হাজার দপ্তর যুক্ত করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘বিশ্বের খুব কম দেশই পাওয়া যাবে যারা হয়ত অর্থনৈতিকভাবে উন্নত, কিন্তু (বাংলাদেশে) দেড় কোটি পেপারলেস ই-ফাইল সম্পাদন করা হয়েছে, খরচ-অর্থ-দুর্নীতি কমিয়ে জনগণের দোড়গোড়ায় সেবা পৌঁছে দেয়া সম্ভব হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘১২ বছর আগে প্রধানমন্ত্রী ডিজিটাল বাংলাদেশের যে রূপকল্পটি ঘোষণা করেছিলেন, সজীব ওয়াজেদ জয় ভাইয়ের অনুপ্রেরণায় এবং পরামর্শে সেই ডিজিটাল বাংলাদেশের সব লক্ষ্য পূরণ করে আমরা দক্ষ মানবসম্পদে পরিণত হয়েছি। আমাদের ১৫ লক্ষাধিক তরুণ-তরুণীর আইসিটি সেক্টরে কর্মসংস্থান হয়েছে।

‘বাংলাদেশে ১২ কোটি ইন্টারনেট ব্যবহারকারী সৃষ্টি হয়েছে এবং একেবারে গ্রাম পর্যন্ত সরকারের সেবা ৮ হাজার ডিজিটাল সেন্টারের মাধ্যমে ১৬ হাজার তরুণ-তরুণী গ্রামে বসে প্রদান করছে।’

অনুষ্ঠানে সোনালী ব্যাংকের চেয়ারম্যান জিয়াউল হাসান সিদ্দিকী বলেন, “সোনালী ব্যাংক ডিজিটাল ব্যাংকিংয়ে অনেক দূর এগিয়ে গেছে। অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য এখন আর সরাসরি ব্যাংকে যেতে হয় না। মুঠোফোন অ্যাপ্লিকেশনে ‘সোনালী ই-সেবা’-এর মাধ্যমে ২ মিনিটে ঘরে বসেই খোলা যায় অ্যাকাউন্ট।”

তিনি বলেন, ‘সোনালী ই-সেবা অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যাংকের নিজস্ব জনবল ও ব্যবস্থাপনায় তৈরি করেছে। আমরা সোনালী ব্যাংককে পুরোপুরি ডিজিটালাইজেশনের জন্য নানা ধরনের উদ্যোগ নিয়েছি। ব্যাংকের উদ্যোগে চালু হওয়া রেমিট্যান্স সেবা ব্লেজ সে উদ্যোগেরই একটি।’

অনুষ্ঠানে সোনালী ব্যাংকের চেয়ারম্যান জিয়াউল হাসান সিদ্দিকীর ভূয়সী প্রশংসা করে জানানো হয়, তিনি এক সময়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর ছিলেন এবং যুগোপযোগী অনেকগুলো পদক্ষেপ নিয়েছেন। এগুলো ব্যাংক খাতকে গতিশীল করতে অনেক সহায়তা করেছে।

অনুষ্ঠানে সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আতাউর রহমান প্রধান বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রবর্তিত ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে সক্রিয় অংশীদার হিসেবে সোনালী ব্যাংক প্রযুক্তিনির্ভর আধুনিক ব্যাংকিং সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় প্রবাসীদের কষ্টার্জিত অর্থ ব্যাংকিং চ্যানেলে ডিজিটাল পদ্ধতিতে তাৎক্ষণিক পরিশোধের জন্য সোনালী ব্যাংক এই উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।’

সোনালী ব্যাংকের প্রযুক্তিগত আধুনিকায়নের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘সারা দেশে সোনালী ব্যাংকের ১ হাজার ২২৮টি শাখার সবগুলোতে এখন আমরা অনলাইন সুবিধা থেকে শুরু করে প্রযুক্তিগত সব ধরনের সেবা দিয়ে যাচ্ছি।’

সোনালী ব্যাংকের প্রযুক্তিগত সক্ষমতা বাড়ানোর ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সার্বক্ষণিক সহায়তার কথা তুলে ধরেন মো. আতাউর রহমান প্রধান।

সোনালী ব্যাংক প্রযুক্তির মাধ্যমে ব্যাংক সেবা কী করে গ্রাহকের ঘর পর্যন্ত পৌঁছে দিচ্ছে তাও তুলে ধরেন তিনি।

 

ব্লেজ সেবাটি যেভাবে পাওয়া যাবে

সোনালী ব্যাংকের ব্লেজ সেবা চালু হওয়ার ফলে প্রবাসীদের কষ্টার্জিত অর্থ বিশ্বের যে কোনো প্রান্ত থেকে ব্যাংকিং চ্যানেলে ডিজিটাল পদ্ধতিতে মাত্র ৫ সেকেন্ডে বাংলাদেশে বেনিফিসিয়ারির ব্যাংক অ্যাকাউন্টে জমা হবে।

প্রাথমিক পর্যায়ে দেশের ৩৫টি ব্যাংকের গ্রাহক ব্লেজ সেবাটি গ্রহণ করতে পারবে। পর্যায়ক্রমে দেশের সব ব্যাংকের গ্রাহক ও এমএফএস হিসাবধারীরা এই সেবার আওতায় আসবেন। নিরবচ্ছিন্নভাবে সপ্তাহে সাত দিন ২৪ ঘণ্টা এই সেবা পাওয়া যাবে।

প্রাথমিক পর্যায়ে অ্যাপ/ওয়েবভিত্তিক ইন্টারন্যাশনাল মানি ট্রান্সফার প্রতিষ্ঠান যেমন Skrill, Tranglo (Malaysia), Taptap Send ইত্যাদির ব্যবহারকারীরা তার ওয়ালেট অ্যাকাউন্ট বা অ্যাপ হতে বেনিফিসিয়ারির ব্যাংক হিসাব সংশ্লিষ্ট তথ্য পূরণ করে ‘সেন্ড’ বাটনে ক্লিক করার সঙ্গে সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বেনিফিসিয়ারির রেমিট্যান্সের তথ্য হোমপের মাধ্যমে সোনালী ব্যাংকে চলে আসবে। বেনিফিসিয়ারি সোনালী ব্যাংকের গ্রাহক হলে ২ শতাংশ প্রণোদনাসহ রেমিট্যান্স গ্রাহকের হিসাবে তাৎক্ষণিকভাবে জমা হবে। যদি বেনিফিসিয়ারি অন্য ব্যাংকের গ্রাহক হয় তবে আইটিসিএল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে ২ শতাংশ প্রণোদনাসহ তাৎক্ষণিক টাকা বেনিফিসিয়ারির সংশ্লিষ্ট ব্যাংক হিসাবে জমা হবে। রেমিট্যান্স প্রেরণকারী ও বেনিফিসিয়ারি উভয়ই রেমিট্যান্সের অর্থ জমা হওয়ার তথ্য তাৎক্ষণিক পেয়ে যাবেন। এ পর্যায়ে ব্লেজের মাধ্যমে পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত রেমিট্যান্স আনা যাবে।

সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে রক্ষিত মানি ট্রান্সফার প্রতিষ্ঠানের প্রিপেইড হিসাবের মাধ্যমে ওই রেমিট্যান্স সেটেলমেন্ট হবে।

নিউজ বাংলা ২৪, ২৪ আগস্টট, ২০২১ , লিঙ্ক 

আরও পড়ুন