গণভবনে এক অভূতপূর্ব দৃশ্য

সম্পাদনা/লেখক: আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল

১৯৭২ সালের ৩ অক্টোবর গণভবনের প্রবেশ মুখে এক অদ্ভুত দৃশ্যের অবতারণা ঘটে। গেটে এক বৃদ্ধের উপস্থিতি প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৃষ্টি আকর্ষিত হয়। বঙ্গবন্ধুর হৃদয় গভীর সহানুভূতিতে আরক্ত হয়ে ওঠে। ওই বৃদ্ধকে  গণভবনের ভেতরে আনার জন্য নির্দেশ দেন বঙ্গবন্ধু। বৃদ্ধ বঙ্গবন্ধুকে জানান যে, তিনি বড়ই অভাবী মানুষ। তিনি আর্থিক সাহায্যের জন্য বঙ্গবন্ধুর কাছে এসেছেন। দুস্থ ও  অসহায় এই পথিকের কথা শুনে বঙ্গবন্ধুর হৃদয় বিগলিত হয়ে ওঠে। তিনি নিজের পকেট থেকে বৃদ্ধকে দুইশ’ টাকা দেন এবং তার কুশলাদি জিজ্ঞেস করেন।  ঘটনাস্থলে যারা ছিলেন, তাদের মধ্যে কয়েকজন বিদেশিও ছিলেন। তারা সবাই দেশের সাধারণ-অসুস্থ মানুষের প্রতি বঙ্গবন্ধুর গভীর সহানুভূতি ও ভালোবাসা দেখে মুগ্ধ হন।

দৈনিক বাংলার খবর (ছবি: ইন্টারনেট থেকে)

মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি পর্যালোচনা হবে

ঢাকায় বাংলাদেশ ও ভারত উভয় দেশের বাণিজ্য প্রতিনিধিদল বৈঠকে মিলিত হয়ে উভয় দেশের মধ্যে বাণিজ্য অন্তরায় দূরীকরণ ও বাণিজ্য কীভাবে ত্বরান্বিত করা যায়, তা নিয়ে আলোচনা করবেন। চার সদস্যের একটি ভারতীয় বাণিজ্য প্রতিনিধিদল নয়াদিল্লি থেকে ঢাকায় এসে পৌঁছালে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সামগ্রিক বাণিজ্যের পর্যালোচনা করা হবে বলে বাসসের বরাত দিয়ে দৈনিক বাংলায় খবর প্রকাশিত হয়। খবরে বলা হয়, তাদের আলোচনায় বাংলাদেশ-ভারত বাণিজ্যের বিভিন্ন সমস্যা ও বাণিজ্য ত্বরান্বিত করার ওপর গুরুত্ব আরোপ করা হবে সবচেয়ে বেশি।

উল্লেখ করা যেতে পারে যে, বাংলাদেশ-ভারত বাণিজ্য চুক্তি অনুযায়ী, চুক্তি সাক্ষরের ছয় মাস পর উভয় দেশ বাণিজ্য পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে দেখবে এবং উন্নয়নের ব্যবস্থা সুপারিশ করবে বলে নির্ধারিত ছিল।  বাংলাদেশ ও ভারতের বাণিজ্য প্রতিনিধিদলের বৈঠকের মুখ্য উদ্দেশ্য উভয় দেশের মধ্যে সামগ্রিকভাবে বাণিজ্য উন্নয়নের পথে বাধা-বিঘ্ন ও অন্তরায় খুঁজে বের করা এবং তার সমাধানের সুপারিশ দেওয়া। এ বৈঠকে বাংলাদেশ-ভারত  সীমান্ত বাণিজ্য চুক্তির তাৎপর্য আলোচনা করা হবে। যদি দেখা যায় যে, সীমান্ত বাণিজ্য সীমান্তে চোরাচালানে সহায়ক হচ্ছে, তাহলে সীমান্ত বাণিজ্য বন্ধ করে দেওয়ার জন্য সুপারিশ করা হবে।  চুক্তির পর ভারত থেকে পাঁচ কোটি টাকার পণ্য আমদানি করেছে এবং বাংলাদেশ দেড়কোটি টাকার পণ্য ভারতে রফতানি করেছে।

.

“> ৪১ হাজার দালাল গ্রেফতার

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মান্নান বগুড়ায় ঘোষণা করেন যে, এ পর্যন্ত ২৭৫ জন পুলিশ অফিসারসহ ৪১ হাজারেরও বেশি দালাল গ্রেফতার করা হয়েছে। দুর্নীতি ও দালালির অভিযোগে প্রায় ৪০ জন পুলিশ কর্মচারী ও বেশ কিছুসংখ্যক পদস্থ সরকারি কর্মকর্তাকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। তিনি বলেন, ‘আরও অনেকের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্ত করা হচ্ছে এবং সময়মতো তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন যে, ‘বিশেষভাবে প্রশাসন ব্যবস্থা এবং সাধারণভাবে দুর্নীতিবাজ ও অবাঞ্ছিত ব্যক্তিদের উৎখাত করার উদ্দেশ্যেই এই ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’ দেশের বর্তমান আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘সমাজবিরোধীদের কঠোর হাতে দমনের ব্যাপারে আওয়ামী লীগ সরকার দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।’

“> বাংলাদেশের পাশে ইন্দোনেশিয়া ও বার্বাডোস

বাংলাদেশকে বিশ্ব সংস্থার সদস্য পদ দেওয়ার জন্য জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে ইন্দোনেশিয়া ও বার্বাডোস আবেদন জানায়। এ দুটি দেশের প্রতিনিধিরা ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে সম্পাদিত সিমলা চুক্তিকেও অভিনন্দিত করে। ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে আলোচনা ফলপ্রসূ হবে বলে তারা আশা প্রকাশ করে। ইন্দোনেশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি আনোয়ার সানি সাধারণ পরিষদে বলেন, ‘জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ২৬তম অধিবেশন দক্ষিণ এশীয় উপমহাদেশে যুদ্ধের অগ্নিশিখা প্রত্যক্ষ করেছে। কিন্তু আজ পরিষদের ২৭তম অধিবেশনে এসে সেই বিয়োগান্তক দৃশ্য ইতিহাসের অঙ্গীভুত দেখতে পাচ্ছি।’

উদিসা ইসলাম

প্রকাশিত : অক্টোবর ০৩, ২০২০ |  Link: BanglaTribune

 

আরও পড়ুন